বৃহস্পতিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ মাঘ ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
সিলেটে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ২  » «   রোহিঙ্গাদের ত্রাণ বিতরণে বাণিজ্য : ৯ এনজিওকে তলব  » «   ত্রিদেশীয় সিরিজঃ জিম্বাবুয়েকে উড়িয়ে দিয়ে শুরু বাংলাদেশের  » «   জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর মরদেহ উদ্ধার  » «   রাজনগরে ৪ ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে জরিমানা  » «   বানিয়াচংয়ে মাইক্রোবাস-জিপ সংঘর্ষে নিহত ১  » «   মন্ত্রীসভায় ‘সিলেট উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ’ আইন পাশ হবে শীঘ্রই  » «   সিলেটে প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করলেন ২৪৪ পুলিশ কনস্টেবল  » «   ডিপথেরিয়া মোকাবেলায় প্রায় পৌনে ৫ লাখ শিশুকে প্রতিষেধক দিচ্ছে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা  » «   সিলেট আইনজীবী সমিতির নির্বাচনঃ সভাপতি লালা ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুল কুদ্দুছ  » «   অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপঃ নামিবিয়াকে গুড়িয়ে দিলো বাংলাদেশের দামাল  » «   তীব্র শীতে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুরা  » «   ওসমানী হাসপাতালঃ আবাসন ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধার অভাবে কাঙ্খিত চিকিৎসা সেবা থেকে বঞ্চিত রোগীরা  » «   সারাদেশে ইন্টারনেটের রেট এক হওয়া উচিতঃ মোস্তাফা জব্বার  » «   স্কুলের শিশুরা পাবে দুপুরের খাবার  » «  

সময়ের নিয়ন্ত্রিত ব্যবহার আবশ্যক

আমাদের জীবনে মূলতঃ দুই ধরনের ঘটনা ঘটে–জরুরি এবং গুরুত্বপূর্ণ। অর্থাৎ কিছু বিষয় থাকে এক, জরুরি আর দুই, জরুরি নয় কিন্তু গুরত্বপূর্ণ। আমাদের দিনের অধিকাংশ ফোন কলই দেখা যায় গুরুত্বপূর্ণ নয়। তারপরও বেশিরভাগ মানুষই ফোনে কথা বলতে থাকেন এবং অধিকাংশ ক্ষেত্রেই এগুলো গুরুত্বহীন। যে জিনিসগুলো গুরুত্বপূর্ণ, দেখা যাবে তার একটি ফলাফল থাকে। যদি কোন কিছু গুরুত্বপূর্ণ হয়, তখন সেটা আপনার স্বপ্নকে বাস্তবায়নে সাহায্য করবে, আপনার ভ্যালু তৈরিতে সাহায্য করবে। আপনার যে লক্ষ্য আছে সেখানে যেতে সাহায্য করবে। এর বাইরে যা তা সবই আপনার জন্য গুরুত্বহীন। যেমন–প্রতি মুহুর্তে সংবাদ দেখা কিংবা সামাজিক মাধ্যমে স্ট্যাট্যাস দেখা আপনার জন্য গুরুত্বপূর্ণ নয়, যারা মিডিয়াতে কাজ করেন তাদের জন্য বিষয়টি গুরুত্বপূর্ণ। আইনস্টাইন–এর কল্যাণে আমরা সবাই এই তথ্যটা এখন জানি। একজন সফলকামী মানুষের জন্য জীবনের প্রতিটি মুহুর্ত ও প্রতিটি সেকেন্ড খুবই মূল্যবান। যদি জীবনে উন্নতি করতে চান, প্রতিষ্ঠিত হতে চান, তবে সময় অপচয় করবেন না–কারণ জীবনটা
সময়ের সমষ্টিমাত্র। একটা দিন চলে যাওয়া মানে জীবন থেকে চব্বিশটা ঘণ্টা ঝরে যাওয়া। মোট কাজ হল, সাফল্যের রহস্য লুকিয়ে আছে সময় বিভাজনে। চব্বিশ ঘণ্টার দিনটা আপনার কাছে আট ঘণ্টা না বাহাত্তর ঘণ্টার হবে, সেটা নির্ভর করে আপনি কিভাবে সময় ব্যয় করছেন তার ওপর। কেউ সারাদিনও কাজ করে কুলিয়ে উঠতে পারে না, আবার কেউ অত সময় নিয়ে কি করবেন, ভেবে উঠতে পারে না। এই দু’পক্ষের কাছে সময় একটা বিড়ম্বনা। সময়ের সদ্ব্যবহার কি করে করবেন, তা না জানার জন্য এদের এমনটি হয়। সময় নষ্ট হওয়ার কারণ প্রধানত: তিনটি-(১) অমনোযোগ: কোন কাজ করতে যতটা সময় লাগা উচিত, আপনি অমনোযোগী হয়ে সেটা সারতে দেরি করছেন অথবা প্রয়োজনীয় উপকরণের অভাবে দেরি হচ্ছে। (২) দক্ষতা–যোগ্যতার অভাব : মনোযোগ ও প্রয়োজনীয় উপকরণ থাকা সত্ত্বেও দক্ষতা ও যোগ্যতার অভাবে কাজটি সারতে বেশি সময় নিচ্ছে। (৩) ব্যাঘাত সৃষ্টি : অন্য কেউ বা কোন মোহ আপনার কাজে ব্যাঘাত ঘটাচ্ছে। একটি বছরের গুরুত্ব বুঝতে চাইলে একজন শিক্ষার্থীর কাছে যান– যে বছরের শেষে পরীক্ষায় ফেল করেছে। একটি মাসের গুরুত্ব বুঝতে চাইলে একজন মায়ের কাছে যান–নির্ধারিত সময়ের আগেই যার অপরিণত সন্তানের জন্ম হয়েছে। একটি মিনিটের গুরুত্ব বুঝতে চাইলে এমন একজনকে জিজ্ঞেস করুন–যিনি অল্পের জন্য ট্রেনে উঠতে পারেন নি। এক সেকেন্ডের গুরুত্ব বুঝতে চাইলে এমন একজনের কাছে যান–যিনি এক মুহুর্তের জন্য দুর্ঘটনার হতে থেকে বেঁচে গেছেন। শেষ কথা, সময় কারো জন্যই অপেক্ষা করে না। সুতরাং প্রতিটি মুহুর্ত থেকে সেরা কিছু অর্জনের চেষ্টা চালিয়ে যেতে হবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: