শুক্রবার, ২২ জুন ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৮ আষাঢ় ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: শেষ মূহুর্তের দুই গোলে চমক দেখালো ব্রাজিল  » «   বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ঃ আর্জেন্টিনাকে ৩ গোলে বিধ্বস্ত করে দ্বিতীয় রাউন্ডে ক্রোয়েশিয়া  » «   ওয়ার্ল্ড কাপ ২০১৮: নক আউট পর্বের আশা বাঁচিয়ে রাখলো স্পেন  » «   হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের পর অস্ট্রেলিয়া-ডেনমার্ক ম্যাচ ড্র  » «   মেসি সর্বকালের সেরা: রাকিটিচ  » «   বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮: রোনালদোর গোলে দ্বিতীয় রাউন্ডের পথে পর্তুগাল  » «   বিশ্বকাপ ফুটবল ২০১৮ঃ সৌদি আরবকে হারিয়ে দ্বিতীয় রাউন্ডে উরুগুয়ে  » «   কমলগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহঃ তিনজনের লাশ উদ্ধার  » «   নগরীতে বন্ধুদের ছুরিকাঘাতে কিশোর খুন  » «   বাংলাদেশী নাজমা খানের আহ্বানে হিজাব পরছেন অন্য ধর্মাবলম্বীরাও  » «   কেমন আছেন সালাহ?  » «   সিলেট সিটি নির্বাচন ৩০ জুলাই  » «   তৃতীয়বার আইপিএল চ্যাম্পিয়ন চেন্নাই সুপার কিংস  » «   নগরীর অভিজাত শপ-রেস্টুরেন্টে ভ্রাম্যমাণ আদালতের জরিমানা  » «   রাশিয়ার মিসাইলেই বিধ্বস্ত হয় মালেশিয়ার বিমান: তদন্ত দল  » «  

তীব্র শীতে নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশুরা

বিশেষ প্রতিনিধি
শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মৌসুমি রোগের প্রকোপও বাড়ছে। আর শীতজনিত রোগে আক্রান্ত হচ্ছে বেশি শিশুরা। ঠাণ্ডা-জ্বর রূপ নিচ্ছে নিউমোনিয়ায়। সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে রোগীর সংখ্যা বাড়ছে প্রতিনিয়ত। শিশুদের সুস্থ রাখতে অভিভাবকদের সতর্ক থাকার পরামর্শ দিয়েছেন বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা।
ডিসেম্বরের শেষ থেকেই জাঁকিয়ে শীত পড়তে থাকে। তবে জানুয়ারির প্রথম সপ্তাতে তীব্রতা বেড়ে যায় শীতের। জানুয়ারি মাসে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে গড়ে প্রতিদিন ৭০০ জন রোগী বর্হিবিভাগে আসছেন। যেটা সাধারণ সময়ে ৩০০ থেকে ৪০০ এর মধ্যে থাকে বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। হাসপাতালের বেডে ভর্তি হওয়া অধিকাংশ শিশুই নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত।
হাসপাতাল সূত্রে জানা যায়, গত এক সপ্তাহে শুধু ৪৩ জন শিশু নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে।
শনিবার (১৩ জানুয়ারি) সকালেও হাসপাতালের বর্হিবিভাগে অভিভাবকসহ শিশু রোগীদের দীর্ঘ লাইন দেখা গেছে। সিলেট সদর হাসপাতালেও একই চিত্র।
ওসমানী হাসপাতালের একজন আবাসিক চিকিৎসক জানান, ঋতু পরিবর্তনের সঙ্গে ঠাণ্ডা-কাশি-জ্বর বাড়ছে। যেটা রুপ নিচ্ছে নিউমোনিয়ায়। তবে বাবা-মাকে খেয়াল রাখতে হবে শিশুর ঠাণ্ডা যেন শ্বাস কষ্টে রুপ না নেয়।
তিনি বলেন, ঠাণ্ডার প্রকোপ বাড়ছে। সাধারণ সময়ে যেখানে তিনশ’ থেকে সাড়ে তিনশ’ রোগী আসেন বর্হিবিভাগে, এখন সেটা প্রায় ৭০০।
এই শীতে শিশুদের উষ্ণ আরামদায়ক কাপড় পড়তে দিতে হবে। সবসময় পানি গরম করে খাওয়াতে হবে এবং ব্যবহারের পানিও গরম করে দিতে হবে। এসময় অল্প মধু এবং তুলসী পাতা খেলে ভালো। তবে অতিরিক্ত গরম কাপড়ের কারণে শিশুর শরীর যেন ঘামিয়ে না যায়, সেদিকেও খেয়াল রাখতে হবে বলে পরামর্শ দেন তিনি।
তবে ২ বছরের নিচে বাচ্চাদের অন্যান্য খাবারের সঙ্গে বুকের দুধ খেতে দিতে হবে। আর বড় বাচ্চারা (২ বছরের উপরে) রাস্তায় যেন ধুলাবালিতে খেলা না করে, বাইরে যেন মাস্ক ব্যবহার করে সেদিকে নজর রাখতে হবে। এছাড়াও রঙিন শবজি ও ফল খেতে হবে।
নিউমোনিয়ায় আক্রান্তের লক্ষণ হিসেবে তিনি বলেন, শিশুর প্রচণ্ড জ্বর আসবে। কাশি হবে। খেতে চাইবে না। মিনিটে ৬০ বারের বেশি শ্বাস নেওয়া বা বুকের দুই পাশের পাঁজর নেমে যাওয়া।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook7Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: