সিলেট সংলাপ | SYLHETSANGLAP.COMগোলটেবিল বৈঠকে নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক  মান্নাঃ দেশে এখন বন্য আইন চলছে | সিলেট সংলাপ | SYLHETSANGLAP.COM

সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মৌলভীবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত  » «   সিলেটে চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা লক্ষাধিক পিস  » «   ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে অবরোধ প্রত্যাহার  » «   পেট পরিষ্কার রাখতে যা খাবেন  » «   আমূল পরিবর্তন আসছে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায়  » «   ক্রেতা আনাগোনা কম সিলেটের পশুর হাটে!  » «   দক্ষিণ সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩০  » «   বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স  » «   পরিকল্পিত নগর গড়ার অঙ্গীকার সিসিক মেয়র প্রার্থীদের  » «   প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া  » «   বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স  » «   উপহারের টাকায় কামরান, বেতনের টাকায় আরিফের নির্বাচনী ব্যয়  » «   ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বেলজিয়াম  » «   উরুগুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ফ্রান্স  » «   টাইব্রেকারে ইতিহাস গড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ড  » «  

গোলটেবিল বৈঠকে নাগরিক ঐক্যের আহবায়ক  মান্নাঃ দেশে এখন বন্য আইন চলছে

সিলেট সংলাপ ডেস্কঃ
দেশে এখন বন্য আইন চলছে বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। আজ শুক্রবার রাজধানীতে প্রশ্নপত্র ফাঁস, শিক্ষা ও শিক্ষাঙ্গন নিয়ে নাগরিক ছাত্র ঐক্য আয়োজিত গোলটেবিল বৈঠকে তিনি এ মন্তব্য করেন।
মান্না বলেন, গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠায় সবার অংশগ্রহণমূলক নির্বাচন প্রয়োজন। কিন্তু সরকার বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়াকে কারাগারে পাঠিয়ে সেই পথে না হাঁটারই ইঙ্গিত দিয়েছে। এ সময় তিনি অভিযোগ করেন, প্রশ্নপত্র ফাঁসের মতো সরকার আগে থেকেই খালেদা জিয়ার বিরুদ্ধে আনা মামলার রায় কী হবে, তা জানত।
জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কথা উদ্ধৃত করে মান্না বলেন, ‘যারা দেশ থেকে হাজার কোটি টাকা পাচার করছে, তাদের পরিচয় প্রধানমন্ত্রী জানেন। অথচ তাদের শাস্তি আগে নিশ্চিত না করে তড়িঘড়ি করে সাবেক প্রধানমন্ত্রীর বিরুদ্ধে এই রায়ের উদ্দেশ্য সবারই জানা।’
মান্না বলেন, ‘গণতান্ত্রিক পদ্ধতিতে, শান্তির পথে সবকিছু বিকশিত হোক, এটা আমরা সবাই চাই। কিন্তু সেই পরিবেশ সবাই মিলে তৈরি করতে হবে। গায়ের জোরে হবে না।’
গতকাল বৃহস্পতিবার জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলার রায় ঘোষণা করেন বিশেষ আদালতের বিচারক ডা. মো. আখতারুজ্জামান।
এ ছাড়া বিএনপির সিনিয়র ভাইস চেয়ারম্যান তারেক রহমানসহ পাঁচ আসামিকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড এবং দুই কোটি ১০ লাখ টাকা করে জরিমানা করা হয়।
রায় ঘোষণার পর পরই সাবেক এ প্রধানমন্ত্রীকে পুরান ঢাকার নাজিমুদ্দিন রোডের পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।
মামলার অন্য আসামিরা হলেন মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সলিমুল হক কামাল, ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ, প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সাবেক সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমানকে ১০ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত। এদের মধ্যে তারেক রহমান, কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও মমিনুর রহমান পলাতক।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: