রবিবার, ২২ এপ্রিল ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ বৈশাখ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
ইঞ্জিনিয়ারিং ছেড়ে চা বিক্রি, মাসিক আয় ৫ লাখ!  » «   বড় ঋণগ্রহীতাদের কাছে ব্যাংকের সাড়ে তিন লাখ কোটি টাকা  » «   মসজিদে যাওয়ার সময় ফিলিস্তিনি বিজ্ঞানীকে গুলি করে হত্যা  » «   দিরাইয়ে নির্মাণাধীন দুটি সেতুর দেয়ালে ফাটল  » «   কোপা দেল রে চ্যাম্পিয়ন বার্সা  » «   সেলিমের সাথে বৈঠক: বিভ্রান্তিমূলক তথ্য প্রচারের অভিযোগে ১৩ কাউন্সিলরের নিন্দা  » «   সিলেট সিটি কর্পোরেশনের কোন ওয়ার্ডে কতো ভোটার  » «   কানাইঘাটে ডাকাতি-খুনের ঘটনায় অস্ত্রসহ গ্রেফতার ২  » «   আরও ৪ ফিলিস্তিনিকে হত্যা করলো ইসরায়েলি হানাদার  » «   ভারতে আট মাস বয়সী শিশুকে ধর্ষণ করলো এক পাষণ্ড  » «   রোহিঙ্গাদের উপর নির্যাতন ও গণহত্যার স্বাধীন তদন্ত চায় কমনওয়েলথ  » «   সিরিয়ায় পশ্চিমা হামলা এবং বিশ্বনেতাদের রহস্যজনক ভূমিকা  » «   বিএসএফ’র হাতে আটক ২ যুবক ভারতের কারাগারে  » «   বহুদিন পর আরব আমিরাতে খুলতে যাচ্ছে বাংলাদেশের শ্রম বাজার  » «   সৌদিতে সিলিন্ডার বিস্ফোরণে দুই সহোদরসহ ৭ বাংলাদেশির মৃত্যু  » «  

বৈশ্বিক আবাসন শিল্পে তাল মেলাতে অর্থায়ন ম্যাট্রিক্স!

সিলেট সংলাপ ডেস্কঃ
আন্তর্জাতিক আবাসন ও বিনিয়োগ ব্যবস্থাপনা প্রতিষ্ঠান জেএলএল’র প্রতিবেদন অনুযায়ী ২০১৭ সালে পুরো বিশ্বে ৭০০ বিলিয়ন মার্কিন ডলার ব্যবসা হয়েছে। ২০১৪ ও ২০১৫ সালের মন্দাভাব কাটিয়ে ২০১৭ সালে ঘুরে দাঁড়ায় দেশের আবাসন খাত। ফলে ২০১৭ সালকে সুভাগ্যের বছর হিসেবে আখ্যায়িত করেছেন এ খাতের ব্যবসায়ীরা।
চলতি বছরে (২০১৮) অবস্থার আরও উন্নতির পাশাপাশি সংশয় কাজ করছে আবাসন ব্যবসায়ীদের মধ্যে। তারা বলছেন, ২০১৮ সাল আবাসন খাতের জন্য চ্যালেঞ্জের বছর হতে পারে। কারণ দেশের ব্যাংকগুলোতে তারল্য সংকটের কারণে গৃহঋণ প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হতে পারে। তবে বিশেষ উদ্যোগে এ চ্যালেঞ্জ মোকাবেলা সম্ভব বলে মনে করছেন তারা।
আবাসন শিল্পের বিভিন্ন বিষয় নিয়ে শনিবার(১০ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে কথা হয় দেশের অন্যতম শীর্ষ শিল্পগ্রুপ রেনকন হোল্ডিংসের প্রতিষ্ঠান র‌্যাংকস এফসি প্রপার্টিস লিমিটেডের সিইও তরুণ কর্পোরেট ব্যক্তিত্ব প্রকৌশলী তানভীর শাহরিয়ার রিমনের সঙ্গে।
তিনি মনে করেন বৈশ্বিক আবাসন শিল্পের সঙ্গে তাল মেলাতে প্রয়োজন অভিনব অর্থায়ন মেট্রিক্স। বাংলাদেশ ব্যাংকের বিশেষ ব্যবস্থাপনায় ২০ হাজার কোটি টাকার বিশেষ তহবিল গঠন জরুরি উল্লেখ করে তিনি বলেন, এই তহবিল থেকে বিভিন্ন ব্যাংক ও অর্থলগ্নীকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মাধ্যমে মধ্যবিত্ত শ্রেণির জন্য কম সুদে ঋণ দেওয়ার ব্যবস্থা করলে এ খাত আরও গতিশীল হবে।
২০১৭ সালের ব্যবসায়ীক ধারাবাহিকতায় ২০১৮ সালে আবাসন ব্যবসার প্রবৃদ্ধি বাড়ার কথা থাকলেও বছরটি চ্যালেঞ্জের হতে পারে বলে আশঙ্কা করছেন তানভীর শাহরিয়ার।
ব্যাংকগুলোর তারল্য সংকটের কারণে গৃহঋণ প্রবাহ বাধাগ্রস্ত হতে পারে উল্লেখ করে তিনি বলেন, রেজিস্ট্রেশন ব্যয় ৭ শতাংশে নামিয়ে আনলে সরকার এ খাত থেকে বিপুল রাজস্ব আদায় করতে পারবে।
প্রথাগত ব্যাংকিং ব্যবস্থাপনার বাইরে এসে তরুণ পেশাজীবীদের জন্য আয়ের সঙ্গে ভারসাম্য রেখে কিস্তি সুবিধায় ৩০ বছর মেয়াদি গৃহঋণের ব্যবস্থা করা জরুরি। কারণ দেশের ৮০ শতাংশ মানুষের নিজের আবাসন ব্যবস্থা আমরা করতে পারিনি। বিরাট এই জনগোষ্ঠীর আবাসনের ব্যবস্থা করতে বিশেষায়ীত ফাইনান্স মেট্রিক্স অনেক বেশি কার্যকর হবে বলেও মনে করেন র‌্যাংকস এফসি প্রপার্টিস লিমিটেডের সিইও।
সূত্রঃ বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook1Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: