শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১২ ফাল্গুন ১৪২৪ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মিয়ানমারে ৩০ বিঘা জমির মালিক, বাংলাদেশে শূন্য হস্ত  » «   বাংলাদেশ বিমানে লাগেজ ভেঙে ডলার চুরি!  » «   যুক্তরাজ্যে অভিবাসী কবি শেলী ফেরদৌস-এর দু’টি কাব্যগ্রন্থের প্রকাশনা অনুষ্ঠান  » «   বর্বরতার আলামত নষ্টে রোহিঙ্গা গ্রামে বুলডোজার  » «   ৫ দিনে সিরিয়ায় সরকারি বাহিনীর হামলায় নিহত ৪০৩  » «   শাহজালালে বিমান আটকে দিল মশা  » «   অল্পের জন্য রক্ষা পেলেন প্রতিমন্ত্রী মান্নান  » «   ছড়া দখল করে বহুতল ভবন  » «   ১৫ ঘণ্টা পর সিলেটের সঙ্গে সারাদেশের রেল যোগাযোগ স্বাভাবিকঃ শ্রীমঙ্গলে ট্রেন দুর্ঘটনায় ২ তদন্ত কমিটি  » «   বিশ্বের বিস্ময়  » «   জিহাদুন নাফস  » «   জগন্নাথপুরে ছাত্রলীগের নতুন কমিটিকে স্বাগত জানিয়ে আনন্দ মিছিল ও সভা  » «   শিক্ষক প্রাইমারির, পরিচয় দেন বিসিএস ক্যাডার  » «   তাহিপুর সীমান্তে কয়লা এবং মদ জব্দ  » «   পুলিশি হেফাজত থেকে আসামির পলায়ন, ফের গ্রেফতার  » «  

সংসদ সদস্য মাহমুদ-উস-সামাদ এর বিরুদ্ধে আ’লীগ নেতাদের বিষোদগার

সিলেট সংলাপ ডেস্কঃ
সিলেট-৩ আসনের সংসদ সদস্য মাহমুদ-উস-সামাদ চৌধুরী কয়েসের বিরুদ্ধে নানামুখী ষড়যন্ত্রের অভিযোগ এনে সংবাদ সম্মেলন ডেকে বিষোদগার করলেন দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আওয়ামী লীগের নেতারা।
বুধবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বিকেলে নগরের একটি অভিজাত হোটেলে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে উপজেলা আ’লীগ নেতারা বলেন, সংসদ সদস্য কয়েস ‘প্রতিহিংসা পরায়ণ’। স্বার্থের কারণে আ’লীগের সঙ্গে রয়েছেন। তিনি ‘রাজাকারের সন্তান’।
দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক মো. রইছ আলীর স্বাক্ষরিত লিখিত বক্তব্য পড়ে শোনান যুগ্ম সম্পাদক সাহেদ হোসেন।
কয়েসের নাম উল্লেখ করে সংবাদ সম্মেলনে নেতারা বলেন, ‘অত্যন্ত প্রতিহিংসা পরায়ণ, আভিজাত্যের অহমিকায় অন্ধ এ সংসদ সদস্য দলের প্রতি আনুগত্য নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন।
উপজেলা আ’লীগের দায়িত্বশীলদের সঙ্গে বৈরী সম্পর্কের জের টেনে লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, কয়েস দলে ‘উড়ে এসে জুড়ে বসা কাক’। ‘কাক হয়ে তিনি ময়ুরের পেখম ধারণ করেছেন’। যে কারণে স্বাধীনতার আগ থেকে উপজেলা আ’লীগের দীর্ঘ রাজনীতির সঙ্গে সম্পৃক্ত ত্যাগীদেরও দূরে ঠেলে স্বার্থান্বেষী চক্রকে নিয়ে আত্মপ্রচারে মত্ত।
কায়েসের বাবা প্রয়াত দেলওয়ার হোসেন ফিরু মিয়া মুক্তিযুদ্ধকালীন শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান ছিলেন! ‘চিহ্নিত’ রাজাকার ফিরুর প্রতিহিংসার শিকার হয়ে ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলার অনেক মানুষ পাকবাহিনীর হাতে নির্যাতিত হয়েছিলেন- এমন অভিযোগ তুলে ধরা হয় সংবাদ সম্মেলনে।
নেতারা বলেন, চিহ্নিত পাকিস্তানী দালালের ছেলে কায়েস লেবাস পাল্টে এখন জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর আদর্শে আ’লীগার!
তিনি ব্যক্তি স্বার্থ চরিতার্থে উপজেলা আ’লীগকে সাংগঠনিকভাবে তছনছ করে দিচ্ছেন। গেলো ৩০ জানুয়ারি প্রধানমন্ত্রীর সিলেট সফরের আগে ২৭ জানুয়ারি দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আ’লীগ স্থানীয় একটি সেন্টারে বর্ধিত সভার আয়োজন করে। ওই সভায় স্রেফ ব্যক্তি সিদ্ধান্তে কেন্দ্রীয় নেতাদের নাম বাদ দিয়ে প্রধান অতিথি হিসেবে নিজের নাম উল্লেখ করে বর্ধিত সভা মঞ্চে জোরপূর্বক ব্যানার টানান।
এ কারণে ওইদিন নেতাকর্মীরা প্রতিবাদমুখর হলে ক্যাডারদের দিয়ে দলের নিরীহ নেতাকর্মীদের ওপর হামলা করান। সংসদ সদস্যের নির্দেশ ১৬ মামলার পলাতক আসামি শিবির ক্যাডার সোহেল রানাসহ সন্ত্রাসী প্রকাশ্যে অস্ত্র উচিয়ে দলীয় নেতাকর্মীদের ওপর ঝাপিয়ে পড়ে, গাড়ি ভাঙচুর করে। এ ঘটনায় ক্ষুব্ধ নেতাকর্মীদের সামাল দিতে এ সংসদ সদস্যের নির্দেশে ৭৬ রাউন্ড গুলি ছুড়ে পুলিশ। এতে দলের ৩০ নেতাকর্মী আহত হন।
ওই ঘটনায় এ সংসদ সদস্যসহ হামলাকারীদের বিরুদ্ধে সাংগঠনিক ব্যবস্থা নিতে জেলা আ’লীগের প্রতি আহ্বান জানানো হয়েছে জানান সংবাদ সম্মেলনে।
এছাড়া ২০১৪ সালে উপজেলা নির্বাচনে আ’লীগ মনোনীত প্রার্থী মোহাম্মদ আবু জাহিদের বিরোধীতা করেন। তাকে পরাজিত করতে না পেরে এখন এলাকার উন্নয়ন কাজের বরাদ্দ আটকানোর জন্য উপজেলা প্রশাসনকে ব্যবহার করার অভিযোগ করা হয়।
প্রতিহিংসা পরায়ণ এ সংসদ সদস্য দলীয় প্রতীকের বিরোধিতা করে ইউপি নির্বাচনে অন্য দলের প্রার্থীদের সমর্থন দিয়ে ৭টি ইউনিয়নের ৫টিতেই নৌকার প্রার্থীদের পরাজিত করান।
স্থানীয় সংসদ সদস্যের বিমাতাসূলভ আচরণে দক্ষিণ সুরমা উপজেলার মানুষ দুর্ভোগে আছেন উল্লেখ করে বক্তারা দাবি করেন- গত ৪ বছর ধরে উপজেলার রাস্তাঘাট, পানি নিষ্কাশন ব্যবস্থা, বিদ্যালয় ও স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের কোনো উন্নয়ন হয়নি।
তাছাড়া এক শিক্ষককে চপেটাঘাত, তৃণমূল নেতাকে কান ধরিয়ে প্রকাশ্যে উট-বস করানো, নিখোঁজ ইলিয়াস আলীকে নিয়ে প্রকাশ্যে জনসভায় সাফাই, সার কারখানা ধ্বংসে প্রকাশ্যে হুমকির অভিযোগ আনেন সংসদ সদস্য কয়েসের বিরুদ্ধে।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে সিলেট-৩ আসনে দলীয় প্রার্থী মনোনয়নে এলাকার সচেতন ভোটারদের চাওয়া-পাওয়াকে মূল্যায়ন করে দলীয় নেতাকর্মীদের সঙ্গে রাজনৈতিকভাবে সম্পৃক্ত সুযোগ্য ব্যক্তিকে মনোনয়ন দেয়ার জন্য আ’লীগের হাই কমান্ডের প্রতি আহ্বান জানান সংবাদ সম্মেলনে।
এসময় উপস্থিত ছিলেন- দক্ষিণ সুরমা উপজেলা আ’লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আব্দুস সালাম, সাংগঠনিক সম্পাদক আব্দুল মতিন, মাসুক উদ্দিন, প্রচার সম্পাদক আব্দুর রব, বন ও পরিবেশ সম্পাদক মো. বশির, শিক্ষা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক আব্দুল আহাদ, কার্যকরী সদস্য জামাল উদ্দিন, আনছার আলী, ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুল ইসলাম শায়েস্তা, তপন চন্দ্র পাল, রফিকুল ইসলাম, বোরহান উদ্দিন, জেলা পরিষদ সদস্য মতিউর রহমান, নুরুল ইসলাম প্রমুখ।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: