সোমবার, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৯ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
সিম রেজিস্ট্রেশনে আর কাগজ-কলম লাগবে না  » «   টাইফুন ‘জেবি’র আঘাতে লণ্ডভণ্ড জাপান, নিহত ৯  » «   রোনালদোর বেতন তিন গুণ বেশি!  » «   দ্বিতীয়বার সিলেটের মেয়র হিসেবে শপথ নিলেন আরিফ  » «   যে নামগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন না  » «   ট্রাম্পের ‘প্যান্ট’ খুলে দিল যে বই  » «   নিরাপদ সড়ক আন্দোলন: ঘটনাই ঘটেনি, মামলা করে রেখেছে পুলিশ  » «   ‘অ্যাওয়ে গোল’ বাতিল করো, দাবি মরিনহো-ওয়েঙ্গারদের  » «   শহিদুলকে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা দিতে নির্দেশ  » «   আরপিও সংশোধন নিয়ে নির্বিকার নির্বাচন কমিশন  » «   মাহাথিরের রসিকতায় শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল!  » «   দেশের বাইরে রান করাটা চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখি : মুশফিক  » «   দুর্দান্ত জয়ে সিপিএলের শীর্ষে মাহমুদুল্লাহরা  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে বিএনপির ২ দিনের কর্মসূচি  » «   আদালতকে খালেদা জিয়া : ‘আমার অবস্থা খুবই খারাপ’  » «  

ওসমানীঃ একটি নাম, একটি ইতিহাস

স্বাধীন বাংলাদেশের মানুষের কাছে মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, আজীবন গণতন্ত্রী, বঙ্গবীর জেনারেল মুহম্মদ আতাউল গণি ওসমানী এক প্রিয় নাম, একটি ইতিহাস। মুক্তি সংগ্রামের জীবন-মরণের উত্তাল তরঙ্গক্ষুব্ধ দিনগুলোতে সর্বাধিনায়ক ওসমানী জনগণের কাছে ছিলেন কিংবদন্তীর মহানায়কের মতো। রণকুশলী কর্নেলের খ্যাতি ছিল তখন আশার আলোকবর্তিকা। স্বাধীনতার গর্বিত অনুভূতি এবং মুক্তিযুদ্ধের চেতনার সাথে মিশে গিয়ে বঙ্গবীর ওসমানী লাভ করলেন মরণজয়ীর অম্লান আসন।
মুক্তিযুদ্ধের আগেও তাঁর খ্যাতি ছিল। ছাত্রজীবনে কৃতিত্বের জন্যে তিনি ছিলেন প্রশংসিত। সৈনিক জীবন শেষে তিনি আসেন রাজনীতির ময়দানে। নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি, মন্ত্রী, একটি রাজনৈতিক দলের প্রতিষ্ঠাতা এবং গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের মূর্ত প্রতীক হিসেবে ওসমানী সকল মহলের বিশেষ দৃষ্টি আকর্ষণ করেন। বঙ্গবীরের ভাবমূর্তি তাই কেবল মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক এবং বীর সৈনিকের সীমিত গন্ডির মধ্যে সীমাবদ্ধ থাকেনি। সততা, ন্যায়পরায়ণতা, নীতিনিষ্ঠা, স্পষ্টবাদিতা, গণতান্ত্রিক মূল্যবোধের প্রতি অবিচল আস্থা এবং নিখাদ দেশপ্রেমের জন্য সকল মহলের শ্রদ্ধা ও ভালোবাসা লাভে সমর্থ হয়েছেন তিনি। বিচিত্র ও অনুকরণীয় কর্মের ভেতর দিয়ে সর্বত্র হয়েছেন নন্দিত। তাঁর নিটোল নিষ্কলুষ ভাবমূর্তি তাই তর্কাতীত এবং দলমত নির্বিশেষে সমাদৃত।
আজকের সামাজিক, রাজনৈতিক ও নৈতিক মূল্যবোধের অবক্ষয়ের দিনে আজীবন অকৃতদার জেনারেল ওসমানী ছিলেন সত্যাদর্শের এক বিরাট মহীরুহ, একটি মহান আদর্শ। রাজনীতির ময়দানে তিনি চমক সৃষ্টি করতে পারেননি সত্য; কিন্তু স্বচ্ছ এবং সুস্থ রাজনীতির ধারা প্রবর্তনের প্রচেষ্টার ভেতর দিয়ে তিনি অনন্য অবদান রেখেছেন। জাতীয় জীবনের বিভিন্ন দূর্যোগময় মুহুর্তে জেনারেল ওসমানীর ‘ত্রাণকর্তা’র ভূমিকা জাতি চিরদিন শ্রদ্ধা ও কৃতজ্ঞতার সাথে স্মরণ রাখবে।
অর্থনীতির মাপকাঠিতে বাংলাদেশ একটি উন্নত দেশ না হলেও এদেশটি অগণিত প্রতিভার জন্ম দিয়ে আসছে যুগ যুগ ধরে। কিন্তু আমাদের দীনতার জন্যে এ মাটির প্রতিভাধর সন্তানদের আমরা যথাযথ স্বীকৃতি ও মর্যাদা দিতে পারছি না। গুণীর সমাদর, প্রতিভার যথাযথ মূল্যায়ন এবং দেশ ও জাতির জন্য যারা অবদান রেখে গেছেন ও রাখছেন তাদের যথার্থ স্বীকৃতি ও মর্যাদা আমাদের জাতীয় স্বর্থেই প্রদান করতে হবে। এই মহৎ উদ্দেশ্যকে সামনে রেখেই অনন্য সাধারণ ব্যক্তিত্ব জেনারেল ওসমানীর অনুকরণীয় জীবন এবং অসামান্য অবদানের মূল্যায়ন জাতীয় এবং রাষ্ট্রীয়ভাবে হওয়া উচিৎ। আর এ অপরিহার্য কাজটি করা উচিৎ আমাদের বৃহত্তর স্বার্থেই। আমরা মনে করি তাঁর ব্যতিক্রমী জীবন ও অনুকরণীয় আদর্শ নিয়ে ব্যাপক ও বিস্তৃত আলোচনা-পর্যালোচনা একান্ত অপরিহার্য। আর এ পর্যালোচনা ও মূল্যায়ন আমাদের অস্থির সামাজিক রাজনৈতিক অবস্থার উন্নয়নে নিশ্চিতভাবে ইতিবাচক অবদান রাখবে বলে আমাদের দৃঢ় বিশ্বাস।
মুক্তিযুদ্ধের সর্বাধিনায়ক, আজীবন গণতন্ত্রী, বঙ্গবীর ওসমানীর মূল্যায়ন বিশেষ কোনো রাজনৈতিক দৃষ্টিভঙ্গিতে নয়, বরং সামগ্রিকভাবে হওয়া উচিৎ। কারণ তাঁর ভাবমূর্তি বিশেষ কোনো মহল কিংবা অঙ্গনে সীমাবদ্ধ নয়। জাতির অন্যতম এই শ্রেষ্ঠ সন্তানের অনুকরণীয় জীবন এবং আদর্শ অনুসরণ আমাদের সমাজ ও জাতীয় জীবনে ইতিবাচক ফল বয়ে আনবে বলে আমাদের একান্ত বিশ্বাস।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: