মঙ্গলবার, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ১০ আশ্বিন ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
সিম রেজিস্ট্রেশনে আর কাগজ-কলম লাগবে না  » «   টাইফুন ‘জেবি’র আঘাতে লণ্ডভণ্ড জাপান, নিহত ৯  » «   রোনালদোর বেতন তিন গুণ বেশি!  » «   দ্বিতীয়বার সিলেটের মেয়র হিসেবে শপথ নিলেন আরিফ  » «   যে নামগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন না  » «   ট্রাম্পের ‘প্যান্ট’ খুলে দিল যে বই  » «   নিরাপদ সড়ক আন্দোলন: ঘটনাই ঘটেনি, মামলা করে রেখেছে পুলিশ  » «   ‘অ্যাওয়ে গোল’ বাতিল করো, দাবি মরিনহো-ওয়েঙ্গারদের  » «   শহিদুলকে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা দিতে নির্দেশ  » «   আরপিও সংশোধন নিয়ে নির্বিকার নির্বাচন কমিশন  » «   মাহাথিরের রসিকতায় শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল!  » «   দেশের বাইরে রান করাটা চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখি : মুশফিক  » «   দুর্দান্ত জয়ে সিপিএলের শীর্ষে মাহমুদুল্লাহরা  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে বিএনপির ২ দিনের কর্মসূচি  » «   আদালতকে খালেদা জিয়া : ‘আমার অবস্থা খুবই খারাপ’  » «  

দুই ছাত্রলীগ নেতা খুন : তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন চায় পরিবার

স্টাফ রিপোর্টারঃ
সিলেট নগরের টিলাগড়ে ছাত্রলীগের অভ্যন্তরীণ বিরোধের জেরে নিহত দুই ছাত্রলীগ নেতা ওমর আহমদ মিয়াদ ও তানিমুল ইসলাম খান তামিম হত্যাকারীদের দ্রুত গ্রেফতারের দাবি জানিয়েছে নিহতদের পরিবার। একইসঙ্গে মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তনের দাবিও জানানো হয় সংবাদ সম্মেলনে।
সোমবার বিকেল সাড়ে ৩টায় সিলেট মহানগরের জিন্দাবাজারস্থ একটি অভিজাত হোটেলের হলরুমে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে নিহত ছাত্রলীগ নেতা ওমর আহমদ মিয়াদ হত্যা মামলার বাদী ও মিয়াদের বাবা আকুল মিয়া এবং তানিমুল ইসলাম খান তামিম হত্যা মামলার বাদী তানিমের বন্ধু দেলোয়ার হোসেন রাহী লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন।
এ সময় তানিমের বাবা আওয়ামী লীগ নেতা ইসরাঈল খান ও ভাই স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতা মঈনুল ইসলাম খানসহ ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা উপস্থিত ছিলেন। সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে আকুল মিয়া ও দেলোয়ার হোসেন রাহী দুটি মামলারই তদন্ত কর্মকর্তা বদলির দাবি জানান।
দুই পরিবারের সদস্যরা সংবাদ সম্মেলনে বলেন, দীর্ঘদিন অতিবাহিত হওয়ার পরও পুলিশ সব আসামিদের গ্রেফতার করতে পারেনি। অথচ তারা প্রকাশ্যে ঘুরে বেড়াচ্ছে। পুলিশকে পর্যাপ্ত তথ্য সরবরাহের পরও কোনো সুফল মিলছে না। আসামিরা স্বাভাবিকভাবে দিনযাপন করছে। সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমসহ দলীয় অনুষ্ঠান কর্মসূচিতে যোগ দিচ্ছে তারা। যা আমাদের স্বজন হারানো পরিবারকে মর্মাহত করেছে।
লিখিত বক্তব্যে বলা হয়, এভাবে যদি একের পর এক হত্যার পর আসামিরা ধরাছোঁয়ার বাইরে থেকে যায় তবে দেশে আইনের শাসন প্রতিষ্ঠা করা অসম্ভব হয়ে পড়বে। আমরা অবিলম্বে মামলাটি পুলিশের গোয়েন্দা বিভাগে স্থানান্তরের আবেদন জানাচ্ছি এবং মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পরিবর্তন করারও দাবি জানাই।
মিয়াদের বাবা আকুল মিয়া বলেন, গত বছরের ১৬ অক্টোবর প্রকাশ্যে আমার ছেলেকে খুন করা হয়। পরে আমি শাহপরাণ থানায় ১০ আসামির নাম উল্লেখ করে এবং অজ্ঞাত আরও কয়েকজনকে আসামি করে মামলা করি। কিন্তু পুলিশ একজন আসামিকে গ্রেফতার করেছে। প্রায় ৫ মাস হয়ে গেলেও এখনও অন্য আসামিরা প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করলেও থেকে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। তারা প্রভাবশালী নেতাদের সঙ্গে বিভিন্ন অনুষ্ঠানে যোগ দিচ্ছে। সামাজিক মাধ্যমে তারা প্রতিদিনই সরব থাকছে। গ্রেফতার করা তো দূরের কথা মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা মূল আসামিদের নাম বাদ দিয়ে মামলার চার্জশিট প্রদানের চেষ্টা করছেন। যার কারণে মূল আসামিরা রেহাই পেয়ে যাবে বলে আমরা মনে করি। তাই আমি উচ্চ পর্যায়ের তদন্ত দাবি করে মামলাটি গোয়েন্দা পুলিশে স্থানান্তর কিংবা নতুন তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগের দাবি জানাচ্ছি।
তানিমের বন্ধু ও ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন রাহী বলেন, গত ৭ জানুয়ারি সন্ধ্যায় প্রকাশ্যে নির্মমভাবে কুপিয়ে খুন করা হয়েছে আমার বন্ধু তানিমুল ইসলাম খানকে। তানিমকে হারিয়ে ভয়ে তার বাবাসহ পরিবারের স্বজনরা মামলা পর্যন্ত করতে আগ্রহী হননি। পরে আমি মামলা দায়ের করেছি। মামলায় মাত্র ৪ আসামিকে গ্রেফতার করতে পেরেছে পুলিশ। অন্যরা এখনও থেকে গেছে ধরাছোঁয়ার বাইরে। মিয়াদের খুনিদের মতো তারাও প্রকাশ্যে ঘুরাফেরা করছে। সামাজিক মাধ্যমে প্রতিদিনই তারা সরব রয়েছে। কিন্তু পুলিশ তাদের গ্রেফতার করতে পারছে না। উল্টো আসামিদের রক্ষা করার তৎপরতা চালানো হচ্ছে।
আকুল মিয়া ও রাহী বলেন, আমরা মিয়াদ ও তানিমের খুনিদের অবিলম্বে গ্রেফতার দাবি করছি। তারা দুজন টিলাগড়ে আধিপত্য বিস্তারের রাজনীতির বলি হয়েছেন। নোংরা রাজনীতির বলি যাতে আর কোনো মেধাবী তরুণ না হন সে লক্ষ্যে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠার দাবি করছি। আসামিরা বিভিন্নভাবে আমাদের ভয়ভীতি ও হুমকি প্রদর্শন করছে। যার কারণে আমরা দুটি পরিবারই আতঙ্কের মধ্যে রয়েছি। আমরা আমাদের নিরাপত্তা নিশ্চিতের দাবি জানাই।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: