সিলেট সংলাপ | SYLHETSANGLAP.COMনগরীতে মা-ছেলে হত্যা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে নাজমুল | সিলেট সংলাপ | SYLHETSANGLAP.COM

সোমবার, ২০ অগাস্ট ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৫ ভাদ্র ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
মৌলভীবাজারে সড়ক দুর্ঘটনায় মোটরসাইকেল আরোহী নিহত  » «   সিলেটে চামড়া সংগ্রহের লক্ষ্যমাত্রা লক্ষাধিক পিস  » «   ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসকের আশ্বাসে অবরোধ প্রত্যাহার  » «   পেট পরিষ্কার রাখতে যা খাবেন  » «   আমূল পরিবর্তন আসছে ট্রাফিক ব্যবস্থাপনায়  » «   ক্রেতা আনাগোনা কম সিলেটের পশুর হাটে!  » «   দক্ষিণ সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩০  » «   বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স  » «   পরিকল্পিত নগর গড়ার অঙ্গীকার সিসিক মেয়র প্রার্থীদের  » «   প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া  » «   বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স  » «   উপহারের টাকায় কামরান, বেতনের টাকায় আরিফের নির্বাচনী ব্যয়  » «   ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বেলজিয়াম  » «   উরুগুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ফ্রান্স  » «   টাইব্রেকারে ইতিহাস গড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ড  » «  

নগরীতে মা-ছেলে হত্যা মামলায় ৭ দিনের রিমান্ডে নাজমুল

সিলেট সংলাপ ডেস্কঃ
মা-ছেলেকে জবাই করে হত্যার মামলায় গ্রেফতারকৃত নাজমুল হোসেনের ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেছেন আদালত।
বুধবার (০৪ এপ্রিল) বিকেল ৪টায় তাকে সিলেট মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির করে ১০ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার ভারপ্রাপ্ত র্কমকর্তা ওসি (তদন্ত) রোকেয়া খানম। শুনানি শেষে বিচারক সাইফুজ্জামান হিরো আসামির ৭ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন।
সিলেট কোতোয়ালি মডেল থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) গৌসুল হোসেন এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।
মঙ্গলবার (০৩ এপ্রিল) দিনগত রাতে সিলেটের বটেশ্বর এলাকা থেকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। গ্রেফতার নাজমুল হোসেন সিলেট সদর উপজেলার টুলটিকর ইউনিয়নের সাবেক মেম্বার ও মুক্তিরচকের বাসিন্দা আব্দুল করিমের ছেলে।
এদিকে গ্রেফতারকৃত নাজমুলকে নিয়ে এদিন বিকেলে কোতোয়ালি মডেল থানায় সংবাদ সম্মেলন করেছে পুলিশ।
সংবাদ সম্মেলনে মহনগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (এসি) গোলাম দস্তগির সাংবাদিকদের বলেন, পেশায় রিয়েল এস্টেট ব্যবসায়ী নাজমুল। শাহপরান এলাকায় অ্যাচিভমেন্ট রিয়েল এস্টেট নামে ব্যবসার সঙ্গে সম্পৃক্ত সে। রোকেয়ার সঙ্গে তার দীর্ঘ দিনের সম্পর্ক ছিলো।
হত্যাকাণ্ডের দিন ওই এলাকায় তার অবস্থান করার তথ্য প্রমাণ মিলেছে। তবে সে সরাসরি হত্যায় জড়িত কি-না, এ বিষয়ে বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।
মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা কোতোয়ালি থানার ওসি (তদন্ত) রোকেয়া খানম বলেন, শিশুটিকে নাজমুলের ছবি দেখানোর পর চিনেছে। হত্যাকাণ্ডে কতোজন জড়িত এ বিষয়ে সে কিছুই জানায়নি। নিহত রোকেয়াকে বিউটি পার্লারের ব্যবসায় সম্পৃক্ত করার কথা ছিলো তার।
এর আগে রোববার (০১ এপ্রিল) বিকেলে নগরীর মিরাবাজার খাঁরপাড়া ‘মিতালী ১৫/জে’ বাসার নিচতলা থেকে রোকেয়া বেগম (৪০) ও তার ছেলে রবিউল ইসলাম রোকনের (১৬) মরদেহ এবং মেয়ে রাইসাকে (৫) জীবিত অবস্থায় উদ্ধার করা হয়। নিহত রোকেয়া বেগম সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর কলকলি গ্রামের হেলাল মিয়ার স্ত্রী। স্বামী দ্বিতীয় বিয়ে করায় বছর খানেক ধরে ওই বাসায় দুই সন্তানকে নিয়ে ভাড়া থাকতেন রোকেয়া।
হত্যার ঘটনায় রোববার মধ্যরাতে কোতোয়ালি মডেল থানায় মামলা (নং-০২(৪)১৮) দায়ের করেন নিহত রোকেয়া বেগমের ভাই জাকির হোসেন। মামলায় অজ্ঞাতপরিচয় ৪/৫ জনকে আসামি করা হয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
3Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: