বুধবার, ১৮ জুলাই ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৩ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
দক্ষিণ সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩০  » «   বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স  » «   পরিকল্পিত নগর গড়ার অঙ্গীকার সিসিক মেয়র প্রার্থীদের  » «   প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া  » «   বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স  » «   উপহারের টাকায় কামরান, বেতনের টাকায় আরিফের নির্বাচনী ব্যয়  » «   ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বেলজিয়াম  » «   উরুগুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ফ্রান্স  » «   টাইব্রেকারে ইতিহাস গড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ড  » «   সিসিক নির্বাচনঃ সবচেয়ে সম্পদশালী মেয়রপ্রার্থী কামরান  » «   সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে সুইডেন  » «   সিলেট সিটি নির্বাচন: প্রচার ১০ থেকে ২৮ জুলাই  » «   সিসিক নির্বাচন: বাছাইয়ে ছিটকে পড়লেন ২০ প্রার্থী  » «   নেইমার ম্যাজিকে মেক্সিকোকে হারিয়ে কোয়ার্টারে ব্রাজিল  » «   টাইব্রেকারে রাশিয়ার কাছে হেরে বিদায় স্পেনের  » «  

সংসদীয় কমিটির বৈঠক শেষে মো. তাজুল ইসলাম এমপি : রমজানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুতের সুপারিশ করা হয়েছে

সিলেট সংলাপ ডেস্কঃ
বিদ্যুৎ, জ্বালানি ও খনিজ সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি মো. তাজুল ইসলাম এমপি বলেছেন, পবিত্র রমজান মাসে অন্য যেকোনো মাসের চেয়ে বিদ্যুতের চাহিদা বেড়ে যায়। কারণ মুসলমানদের অন্যান্য যেকোনো মাস থেকে এ মাসেই বেশি ইবাদত বন্দেগি করতে হয়। রোজায় তারাবি নামাজ আদায়, মধ্যরাতে সাহারি খেতে হয় এবং সর্বোপরি ইফতার অনুষ্ঠান থাকে। তাই আসন্ন রমজানে মুসলমানদের ইবাদত বন্দেগিতে বিঘ্ন ঘটাতে কোনো অসাধু চক্র যাতে তৎপর না হয়ে উঠতে পারে এবং সরকারের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ণ না করতে পারে সে জন্য নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত করার জন্য জোরালো সুপারিশ করা হয়েছে।
রোববার জাতীয় সংসদের স্থায়ী কমিটি কক্ষে বিদ্যুৎ, জ্বালানি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় কমিটির বৈঠকে এসব সুপারিশ করা হয়। বিদ্যুৎ, জ্বালানি মন্ত্রণালয়ের সংসদীয় কমিটির সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম এমপির সভাপতিত্বে বিকেল ৩ টায় শুরু হয়ে পৌনে ৬টায় সভাটি শেষ হয়।
বৈঠক শেষে তিনি বলেন, ‘রমজান মাসে ধর্মপ্রাণ মুসলমানদের বিদ্যুতের জন্য যাতে কোনো কষ্ট না হয়, সে জন্য নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ সরবরাহ নিশ্চিত রাখার সুপারিশ করেছে বিদ্যুৎ, জ্বালানি মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটি। কমিটির এই সুপারিশের সঙ্গে মন্ত্রণালয়সহ বিতরণ, সঞ্চালন ও সংযোগ স্থাপন করা বিদ্যুৎ প্রতিষ্ঠানগুলো একমত পোষণ করেছে। তবে, এলএনজি আসায় এবার রমজানে বিপণীবিতানগুলো সীমিত আকারে আলোকসজ্জা করার সুযোগ পাবে। কারণ বিদ্যুৎ পরিস্থিতি অতীতের যেকোনো সময়ের তুলনায় ভালো বলে মনে করছে সংসদীয় কমিটি।
এ সভায় কমিটির সদস্য ও প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ এমপি, জাতীয় সংসদের হুইপ মো. আতিউর রহমান আতিক এমপি, এম. আবদুল লতিফ এমপি, এ বি এম রুহুল আমিন হাওলাদার এমপি এবং নাসিমা ফেরদৌসী এমপি বৈঠকে অংশগ্রহণ করেন। এছাড়া বৈঠকে বিদ্যুৎ বিভাগের সচিবসহ মন্ত্রণালয়ের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাবৃন্দ এবং সংসদীয় কমিটির সভাপতির একান্ত সচিব, এপিএস ও জাতীয় সংসদ সচিবালয়ের সংশ্লিষ্ট ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
সংসদীয় কমিটি দেখতে চায় রমজানে নিরবচ্ছিন্ন বিদ্যুৎ। মন্ত্রণালয় কমিটির সঙ্গে একমত পোষণ করেছে উল্লেখ করে কমিটির সভাপতি মোঃ তাজুল ইসলাম এমপি বলেন, আমাদের এ সুপারিশকে তারা (মন্ত্রণালয়) ইতিবাচক হিসেবে নিয়েছে। তারা আশস্ত করেছে, রমজানে সার্বক্ষণিক বিদ্যুৎ থাকবে। তিনি আরো বলেন, গ্রীষ্ম আর রমজান মাস লোডশেডিং মুক্ত করতে নেওয়া হয়েছে নানা উদ্যোগ। এ সময় বিকেল ৫টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত সিএনজি ফিলিং স্টেশনগুলো বন্ধ থাকবে বলেও মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে কমিটিকে জানানো হয়েছে।
বৈঠক সূত্রে জানা গেছে, বাংলাদেশ মধ্যম আয়ের থেকে উন্নয়নশীল দেশে উন্নীত হয়েছে। বর্তমান আওয়ামী লীগ নেতৃত্বাধীন সরকারের লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত দেশে উপনীত হবে বাংলাদেশ। এই পর্যায়ে পৌঁছানোর পর সর্বক্ষেত্রে চাহিদা ও মানুষের জীবনমান বাড়বে। এতে বিদ্যুৎতের চাহিদা বাড়বে। সেই টার্গেট ধরে জাপানি প্রতিষ্ঠান জাইকার করা বিদ্যুতের মহাপরিকল্পনায় পরিবর্তন আনা হয়েছে। আগের পরিকল্পনায় ২০৪১ সালের মধ্যে ৬০ হাজার মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও এখন তার লক্ষ্য নির্ধারণ হয়েছে ৮২,২৯২ মেগাওয়াট। মন্ত্রণালয়ের পুনর্মূল্যায়ন এই টার্গেট নির্ধারণের বিষয়টিও গতকাল সংসদীয় কমিটিকে মন্ত্রণালয়ের পক্ষ থেকে অবহিত করা হয়। কমিটির পক্ষ থেকে পুনর্নির্ধারিত এই লক্ষ্যমাত্রা অর্জনে সর্বাত্মক সহায়তা থাকবে বলে মন্ত্রণালয়কে আশস্ত করা হয়।
এছাড়া বৈঠকে এসডিজি অর্জনে বিদ্যুৎ বিভাগের কর্মপরিকল্পনা বাস্তবায়নের গৃহীত সিদ্ধান্ত নিয়ে আলোচনা হয়েছে। কর্মপরিকল্পনায় দেখা যায়, ইতোমধ্যে এই পরিকল্পনার অন্তর্ভুক্ত ১২টি পাইপলাইন প্রকল্প ইতোমধ্যে অনুমোদিত হয়েছে। আরো ২০টি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এছাড়া কর্মপরিকল্পনা বহির্ভূত আরো ৫টি প্রকল্প অনুমোদনের জন্য প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: