বৃহস্পতিবার, ১৯ জুলাই ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ৪ শ্রাবণ ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
দক্ষিণ সুরমায় বাস-ট্রাক সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩০  » «   বিশ্ব চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স  » «   পরিকল্পিত নগর গড়ার অঙ্গীকার সিসিক মেয়র প্রার্থীদের  » «   প্রথমবার বিশ্বকাপের ফাইনালে ক্রোয়েশিয়া  » «   বিশ্বকাপের ফাইনালে ফ্রান্স  » «   উপহারের টাকায় কামরান, বেতনের টাকায় আরিফের নির্বাচনী ব্যয়  » «   ব্রাজিলকে কাঁদিয়ে বিশ্বকাপের সেমিফাইনালে বেলজিয়াম  » «   উরুগুয়েকে হারিয়ে সেমিফাইনালে ফ্রান্স  » «   টাইব্রেকারে ইতিহাস গড়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ইংল্যান্ড  » «   সিসিক নির্বাচনঃ সবচেয়ে সম্পদশালী মেয়রপ্রার্থী কামরান  » «   সুইজারল্যান্ডকে হারিয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে সুইডেন  » «   সিলেট সিটি নির্বাচন: প্রচার ১০ থেকে ২৮ জুলাই  » «   সিসিক নির্বাচন: বাছাইয়ে ছিটকে পড়লেন ২০ প্রার্থী  » «   নেইমার ম্যাজিকে মেক্সিকোকে হারিয়ে কোয়ার্টারে ব্রাজিল  » «   টাইব্রেকারে রাশিয়ার কাছে হেরে বিদায় স্পেনের  » «  

কমলগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতি আরো ভয়াবহঃ তিনজনের লাশ উদ্ধার

কমলগঞ্জ সংবাদদাতা:
টানাবৃষ্টিতে উজান থেকে নেমে আসা পাহাড়ি ঢলে মৌলভীবাজারের কমলগঞ্জে বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়েছে। সৃষ্ট বন্যায় নিম্নাঞ্চলের গ্রামের প্রায় ৮০ শতাংশ মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন। এসব গ্রামের বসতভিটায় প্রায় ২ ফুট উচ্চতার পানি থাকায় অনেকে ঈদুল ফিতরের নামাজও আদায় করতে পারেননি।
এদিকে গতকাল পানির স্রোতে ভেসে নিখোঁজ হওয়া ছয়জনের মধ্যে শনিবার সকালে পিতাপুত্রসহ ৩ জনের লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। বাকী ৩ জন এখনও নিখোঁজ রয়েছেন।
জানা যায়, বন্যা পরিস্থিতির আরও অবনতি হয়ে উপজেলার নিম্নাঞ্চলের আলীনগর, শমশেরনগর, পতনউষার, কমলগঞ্জ পৌরসভার একাংশ, মুন্সীবাজার ইউনিয়নের গ্রামে মানুষজন পানিবন্দী হয়ে আছেন। তাদের অনেকের বাড়ির উঠোনে কোমর পরিমাণ ও বসতঘরে ২ ফুট উচ্চতার পানি প্রবেশ করেছে। যোগাযোগের কোন ব্যবস্থা না থাকায় পানিবন্দীদের উদ্ধারও করা সম্ভব হচ্ছেনা।
শুক্রবার সন্ধ্যার আগে আদমপুর বাজার থেকে বাড়ি ফেরার সময় সড়কের পানির স্রোতে ভেসে যান ইসলামপুর ইউনিয়নের সাত্তার মিয়া (৫৫) ও তার ছেলে করিম মিয়া (২০)। ঈদের দিন শনিবার সকাল পৌনে ৮টায় শমশেরনগর শিংরাউলী গ্রামে পানি অতিক্রম করে সড়ক দিয়ে পারাপারের সময় জামাল মিয়া (৫৪) নামের এক মানসিক প্রতিবন্ধী ভেসে যায়। শনিবার সকাল ৮টায় আলীনগর ইউনিয়নের হালিমা বাজার এলাকায় পানির স্রোতে ভেসে যান সেলিম মিয়া (৪০) নামের এক পরিবহন শ্রমিক।
অন্যদিকে শনিবার সকালে কমলগঞ্জ-মৌলভীবাজার সড়কের মান্দারীবন এলাকায় সড়কে উঠা পানির মাঝ দিয়ে চলাচলের সময় গ্রামে যাত্রীসহ একটি সিএনজি পানিতে ভেসে যায়। চালকসহ ৫ জন যাত্রীকে উদ্ধার করা গেলেও অজ্ঞাত পরিচয়ের এক যাত্রীকে এখনও উদ্ধার করা যায়নি। এছাড়া শুক্রবার সন্ধ্যায় আলীনগর ইউনিয়নে লাঘাটা ছড়ায় পানিতে ভেসে গেছেন অজ্ঞাত পরিচয়ের আরেক নারী। আদমপুর ইউনিয়নে নিখোঁজ বাবা সাত্তার মিয়া ও তার ছেলে করিম মিয়া ও শমশেরনগর ইউনিয়নে জামাল মিয়া নামের মানসিক প্রতিবন্ধীর লাশও উদ্ধার করা হয়।
কমলগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাহমুদুল হক বন্যার পানিতে ৬ জন নিখোঁজের পর ৩ জনের লাশ উদ্ধারের সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, পানিবন্দী মানুষকে উদ্ধারে তেমন কোন সু-ব্যবস্থা না থাকলেও সেনাবাহিনীর উদ্ধারকারী দল আসছে। তবে সমস্যা হচ্ছে মৌলভীবাজার জেলা সদর থেকে কমলগঞ্জ উপজেলায় প্রবেশের সবগুলো সড়ক বন্ধ রয়েছে। তিনি আরও বলেন, এসব সড়কের কয়েকটি স্থানে ৪ থেকে ৫ ফুট পরিমাণ পানিতে নিমজ্জিত রয়েছে। সেনা বাহিনীর উদ্ধারকারী দলকে কমলগঞ্জে আনার চেষ্টা চলছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook0Share on Google+0Tweet about this on TwitterShare on LinkedIn0Email this to someonePrint this page

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: