মঙ্গলবার, ১৩ নভেম্বর ২০১৮ খ্রীষ্টাব্দ | ২৯ কার্তিক ১৪২৫ বঙ্গাব্দ |
শিরোনাম
আনুষ্ঠানিকভাবে দায়িত্ব নিলেন আরিফুল হক চৌধুরী  » «   সিম রেজিস্ট্রেশনে আর কাগজ-কলম লাগবে না  » «   টাইফুন ‘জেবি’র আঘাতে লণ্ডভণ্ড জাপান, নিহত ৯  » «   রোনালদোর বেতন তিন গুণ বেশি!  » «   দ্বিতীয়বার সিলেটের মেয়র হিসেবে শপথ নিলেন আরিফ  » «   যে নামগুলো পাসওয়ার্ড হিসেবে ব্যবহার করবেন না  » «   ট্রাম্পের ‘প্যান্ট’ খুলে দিল যে বই  » «   নিরাপদ সড়ক আন্দোলন: ঘটনাই ঘটেনি, মামলা করে রেখেছে পুলিশ  » «   ‘অ্যাওয়ে গোল’ বাতিল করো, দাবি মরিনহো-ওয়েঙ্গারদের  » «   শহিদুলকে প্রথম শ্রেণির বন্দীর সুবিধা দিতে নির্দেশ  » «   আরপিও সংশোধন নিয়ে নির্বিকার নির্বাচন কমিশন  » «   মাহাথিরের রসিকতায় শ্রোতাদের মধ্যে হাসির রোল!  » «   দেশের বাইরে রান করাটা চ্যালেঞ্জ হিসেবে দেখি : মুশফিক  » «   দুর্দান্ত জয়ে সিপিএলের শীর্ষে মাহমুদুল্লাহরা  » «   খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবিতে বিএনপির ২ দিনের কর্মসূচি  » «  

মাধবপুরে ট্রিপল মার্ডারের রহস্য উদঘাটনের পথে

হবিগঞ্জ সংবাদদাতা: হবিগঞ্জের মাধবপুরে দুই সন্তানকে গলা কেটে হত্যার পর মা আত্মহত্যা করেছেন বলে ধারণা করা হলেও এটি একটি পরিকল্পিত হত্যাকাণ্ড বলে নিশ্চিত হয়েছে পুলিশ। ইতোমধ্যে শনাক্ত করা হয়েছে কিলিং মিশনে জড়িতদের।
মঙ্গলবার (৪ সেপ্টেম্বর) দুপুর সাড়ে ১২টায় মাধবপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) চন্দন কুমার চক্রবর্তী জানান, পুলিশ হত্যাকাণ্ডের রহস্য উদঘাটনে অনেকটা এগিয়েছে। এ হত্যাকাণ্ডে একাধিক ব্যক্তি জড়িত থাকতে পারে। ইতোমধ্যে তাদের শনাক্তও করা হয়েছে। তবে তদন্তের অগ্রগতির স্বার্থে তাদের নাম প্রকাশ করা হচ্ছে না। আসামিদের গ্রেফতারে অভিযান অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি।
শুক্রবার (৩১ আগস্ট) রাত ১১টার দিকে মাধবপুর উপজেলার ধর্মঘর ইউনিয়নের নিজনগর গ্রামে ব্যবসায়ী মুজিবুর রহমানের ঘরের দরজা বন্ধ দেখতে পান এলাকাবাসী। পরে ডাকাডাকি করলেও কারো কোনো সাড়া মেলেনি। একপর্যায়ে তারা উঁকি দিয়ে দেখতে পান ঘরের ভেতর গলায় ফাঁস লাগানো অবস্থায় হাদিছা বেগমের মরদেহ পড়ে রয়েছে। আর খাটে তার আড়াই বছর বয়সী মেয়ে মিম আক্তারের গলা কাটা মরদেহ পড়ে রয়েছে। অপর একটি কক্ষে গলা কাটা অবস্থায় মোজাহিদ মিয়ার (৭ মাস) মরদেহও দেখতে পেয়ে পুলিশকে খবর দেন।
পরদিন শনিবার হাদিসার বাবা শামীম মিয়া বাদী হয়ে সাতজনকে আসামি করে মাধবপুর থানায় একটি হত্যা মামলা দায়ের করেন। এরপর জিজ্ঞাসাবাদের জন্য হবিগঞ্জ ডিবি পুলিশ একজনকে আটক করলেও তদন্তের স্বার্থে তার নাম প্রকাশ করেনি।
এদিকে, ঘটনার পর থেকেই হাদিসার স্বামী মুজিবুর রহমান পলাতক থাকায় স্থানীয়দের সন্দেহের তীর তার দিকেই। তাদের ধারণা হাদিসার স্বামীই দুই সন্তানসহ তাকে হত্যা করেছে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:
Share on Facebook
Facebook
0Share on Google+
Google+
0Tweet about this on Twitter
Twitter
Share on LinkedIn
Linkedin
Email this to someone
email
Print this page
Print

সর্বশেষ সংবাদ

Developed by: